মঙ্গলবার ১৮ ডিসেম্বর, ২০১৮
deutschenews24.de
Ajker Deal

আলবেয়্যার কাম্যুর 'দ্য প্লেগ' ও বাংলাদেশের বন্যা!

আশানুর রহমান খোকন
প্রকাশিত: ১৮ আগস্ট ২০১৭ শুক্রবার, ০৪:৩১  পিএম

আলবেয়্যার কাম্যুর 'দ্য প্লেগ' ও বাংলাদেশের বন্যা!

সময়টা চল্লিশের দশক। স্থান ফ্রান্সের তৎকালীন ঔপনিবেশ আলজেরিয়া। সেই আলজেরিয়ার বন্দর শহর `ওরান`। শহরের লোকজন হঠাৎ করে একদিন লক্ষ্য করে শহরের রাস্তায়, বিভিন্ন মোড়ে ইঁদুর মরে পড়ে আছে। প্রথমে একটা/দুইটা, তারপর শত শত। স্থানীয় পত্রিকায় খবর বের হলে শহরের নাগরিকদের মধ্যে অাতংক ছড়িয়ে পড়ে। শহরের ব্যস্ত ডাক্তার `রিউ` সন্দেহ করে সাংঘাতিক কিছু ঘটছে যাচ্ছে, কিন্তু কি সেটা সে জানে না। একদিন তার অফিসের কাছাকাছি বসবাসরত `মাইকেল` জরে ভুগে মারা গেলে, ডাক্তার রিউ ও তার কলিগ ডা. ক্যাসেল কিছু পরীক্ষা-নীরিক্ষা শেষে বুঝতে পারে এটা প্লেগ। শহরে ইঁদুর মরার সাথে প্লেগ সম্পর্কযুক্ত বলেও তারা একমত হয়ে কর্তৃপক্ষকে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহণের অনুরোধ করলে, কর্তৃপক্ষ তাতে কর্ণপাত করে না। একজন মানুষের মৃত্যুতে এটাকে প্লেগ এবং শহরের ইঁদুরের মৃত্যুর সাথে তাকে সম্পর্কযুক্ত করাকেও কর্তপক্ষ যথার্থ মনে করেনি। ফলে শহর যে প্লেগ অাক্রান্ত সেটা কর্তপক্ষ অস্বীকার করতেই থাকে।

তার কিছুদিন পর শহরের রাস্তায় বা মোড়ে ইঁদুর মরা বন্ধ হয়। কর্তৃপক্ষ নিজেদের পিঠ চাপড়ায়। কিন্তু শুরু হয় মানুষ করা। প্লেগ তখন মহামারী আকার ধারণ করে। নাগরিক চাপে ও ডাক্তার রিউয়ের চেষ্টায় সরকার বাধ্য হয় শহর যে প্লেগ অাক্রান্ত সেটা স্বীকার করে জরুরী ব্যবস্থা গ্রহণ করতে। হাসপাতালে স্পেশাল ওয়ার্ড খোলা হয়। শহর সিল-গালা করা হয়। বাইরে থেকে কাউকে আসতে বা ভিতর থেকে বাইরে যেতে কর্তৃপক্ষ বাঁধা দিতে থাকে।

তার কিছুদিন অাগে রেমন্ড রেমবার্ট নামক একজন সাংবাদিক অাসে ফ্রান্স থেকে ওরান শহরের জীবনযাত্রা নিয়ে সংবাদ সংগ্রহের আশায়। কর্তৃপক্ষ প্লেগ স্বীকার করে নেবার পর রেমবার্টও আটকা পড়ে। কর্তৃপক্ষ তাকেও যেতে দেয় না পাছে প্লেগের সংবাদ বাইরে ছড়িয়ে পড়ে। আমলাতন্ত্রের গেরোয় অাটকা পড়ে রেমবার্ট।

আমার উদ্দেশ্য কিন্তু `দ্য প্লেগ` নিয়ে কোনও আলোচনা করা নয়। উপন্যাসটিতে আলবেয়্যার কাম্যু ওরান শহরের প্লেগ নিয়ে কর্তৃপক্ষের যে চরিত্র তুলে ধরেছিলেন তার সারমর্মটি যে সব দেশে সবকালে প্রযোজ্য সেটা বলার জন্যই উপরের ভূমিকাটুকু করা। যদিও আমার কথাটা সামান্য, ভূমিকাটা সে তুলনায় বড় হয়ে গেলো।

কিছুদিন অাগে চিকনগুনিয়া নিয়ে ঢাকার মেয়রদের বক্তব্য নিশ্চয় মনে অাছে। মেয়র চিকনগুনিয়া যে ঢাকা শহরে মহামারী রুপ নিয়েছিল সেটা কোনভাবেই স্বীকার করলেন না। সারা দেশে এখন বন্যা হচ্ছে। কোথাও কোথাও পরিস্থিতি ভয়াবহ। সরকারের সমর্থক নানা ব্যক্তি বা গোষ্ঠী নানাভাবে বলার চেষ্টা করছে এটা স্বাভাবকক বন্যা, যেটা ফি বছর হয় এবং সরকারের প্রস্তুতিও ভাল। যেমনটা সব সরকারই বলে থাকে। সরকারের ছাত্র সংগঠনের হাতে এমরান এইচ সরকার প্রহৃত হলো শাহবাগে `ত্রাণ সংগ্রহের অপরাধে`। তার অপরাধ দেশে বন্যা নেই, ত্রাণ সংগ্রহ কিসের? সরকার সমর্থক সাংবাদিকরা বলছেন, বন্যাটা স্বাভাবিক। সরকার সমর্থক ফেসবুকাররা বলছেন, বন্যার অনেক ছবি নাকি ফটোশপ করে পোষ্ট দেয়া হচ্ছে। অতিরন্জিত করে জনমনে নাকি অাতংক তৈরী করা হচ্ছে। ` দ্য প্লেগ` এর সাথে মিল পাচ্ছেন? ১৯৭১ সালেও পাকবাহিনী তাদের অধিকৃত নয় মাসে হত্যা, ধর্ষণ, অাগুন, লুটপাটের পর পূর্ব পাকিস্তানের অবস্থা স্বাভাবিক বলেই বিবৃতি দিতেন। সরকারী প্রেসনোটের ভাষা সবকালেই একই রকম।

সময় পাল্টায়, মানচিত্র বদলায়, সরকার পরিবর্তন হয়, কিন্তু `দ্য প্লেগ` এর কর্তৃপক্ষীয় বক্তব্যের সাথে অামাদের সরকার পক্ষের বক্তব্যের মধ্যে কোন তফাত থাকে না। কর্তৃপক্ষ ও তাদের সমর্থকরা যাই বলুক না কেন, দেশের বন্যা পরিস্থিতি ভাল নয়। আমি হাত বাড়াচ্ছি, আপনি আপনার হাতটিও এগিয়ে দিন!
, , ,

 

টরেন্টো, আগস্ট ১৭, ২০১৭