সোমবার ২৪ জুন, ২০১৯
deutschenews24.de
Ajker Deal

শিক্ষা নিয়ে গড়বো দেশ, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ

মোহাম্মদ গোলাম মোর্শেদ
প্রকাশিত: ০৫ জানুয়ারি ২০১৭ বৃহস্পতিবার, ০৪:২২  এএম

শিক্ষা নিয়ে গড়বো দেশ, শেখ হাসিনার বাংলাদেশ

এবার বাংলাদেশের  প্রাথমিক পাঠ্য বই এর মলাটের পেছনে সংযোজিত নতুন দু´লাইনের একটি স্লোগান দেশের বর্তমান প্রকৃত বাস্তবতার ইঙ্গিত ও অনেকগুলো ভাবনার জন্ম দিলো,

শ্লোগানটি হল:
শিক্ষা নিয়ে গড়বো দেশ
            শেখ হাসিনার বাংলাদেশ ।

শ্লোগানটি মূলত হওয়া উচিত ছিলো :  

            শিক্ষা নিয়ে গড়বো দেশ
আমার এই  বাংলাদেশ ।

এমন হলে একটি শিশু ভাবতে শিখতো এই দেশ ও এই বৃহত্তরজনগোষ্ঠী আমার, তাই আমাকে এই রাষ্ট্র ও এই জনগোষ্ঠীকে সঠিকরূপে পরিচালনার জন্য জ্ঞানভিত্তিক শিক্ষা অর্জন করতে হবে এবং নিজেকে যোগ্য মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। মনের মধ্যে তৈরি হতো নেতৃত্বদানের মানসিকতা, মনোবল।   

অথবা শ্লোগানটি যদি এমন হতো :

                   শিক্ষা নিয়ে গড়বো দেশ
আমাদের এই বাংলাদেশ ।

তাহলে একটি শিশুর মধ্যে গড়ে উঠতো সামগ্রিক জাতিকে নিয়ে ভাবনার মানসিকতা এবং মনের মধ্যে উদয় হতো সম্মিলত চেষ্টা ও অবদানেই গড়ে তোলা সম্ভব সুখী ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ। আর সেই অবদানে নিজেকে একজন যোগ্য মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে জ্ঞান অর্জন অত্যাবশ্যক। 

আজকের শিশুই মূলত আগামী দিনের দেশের কর্ণধার এবং দেশ গড়ার কারিগর। একটি শিশু যে দেশের ভবিষ্যৎ কর্ণধার এবং তার হাতেই রাষ্ট্রের আগামী দিনের দায়িত্ব এই বোধটা শিশুদের মধ্যে তৈরি করে দেয়ার মহান দায়িত্ব মূলত রাষ্ট্রের এবং তা  রাষ্ট্র ও জনগণের স্বার্থেই ।

কিন্তু আজ যে স্লোগানটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিশুদের সামনে তুলে ধরা হয়েছে ,এই স্লোগানটির মাধ্যমে প্রথমেই একটিশিশুর মনে যে ধারনা বা বোধের  জন্ম দেবে তাহলো, পড়তে হবে দেশ গড়ার জন্য কিন্তু পড়াশুনা করে যে দেশটি গড়ার দায়িত্ব তাকে নিতে হবে সেই দেশটি তার নয়, দেশটি একজন ব্যক্তি বিশেষের। পড়াশুনা করে মূলত তাকে এই দেশ গড়ার জন্য একজন দক্ষ কর্মচারী হতে হবে। নেতা হওয়া যাবেনা, কারণ দেশের নেতৃত্ব আসবে দেশের মালিকের উত্তরসূরিদের থেকে। 

একটি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রে জনগণ ভোটের মাধ্যমে নির্ধারিত সময়ের জন্য কোনও ব্যক্তি বিশেষকে প্রধানমন্ত্রী বা রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব প্রদান করে থাকেন। জনগণ মূলত রাষ্ট্র পরিচালনার জন্য নেতা নির্বাচন করেন, তাকে রাষ্ট্রের মালিকানা প্রদান করেনা। কিন্তু এবারের প্রাথমিক শিক্ষার বইয়ের মলাটের শ্লোগানের সারমর্ম  বলে দিচ্ছে, আমাদের দেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে নয় বরং রাষ্ট্রের মালিকানা সত্ত্ব অর্জন করেছেন।

সাধারণত উন্নত চিন্তাশীল দেশগুলোতে দেখা যায়, যারা রাষ্ট্র পরিচালনার দায়িত্বে এসে দেশ ও জনগণের কল্যাণে এবং বৃহত্তর স্বার্থে কোনও বিশেষ অবদান রেখে যান তাহলে তাদের দায়িত্ব থেকে বিদায়ের পর পরবর্তী  প্রজন্ম অথবা পরবর্তীতে রাষ্ট্রের দায়িত্বে থাকা ব্যক্তিবর্গ তার অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ নানাভাবে সম্মান প্রদর্শন করেন। অথচ আমাদের দেশে গড়ে উঠেছে, বৃহত্তর জনগণের শ্রদ্ধা বা অশ্রদ্ধা প্রদর্শনকে উপেক্ষা করে ক্ষমতার অপব্যবহারের মাধ্যমে  আইন করে নিজের জীবনদশায় নিজের স্বীকৃতি নিজেই ঘোষণা করে মানসিক আত্মতৃপ্তি লাভ করার সংস্কৃতি । যা হাস্যকর ও রাষ্ট্রের জন্য অকল্যাণকর ।

 

মোহাম্মদ গোলাম মোর্শেদ: প্যারিস প্রবাসী সাংস্কৃতিক কর্মী। অবসরে ফটোগ্রাফি করেন। আর সমসাময়িক বিষয় লিখতে পছন্দ করেন।